×
সাতক্ষীরা জেলার উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান

কপোতাক্ষ নদ সাতক্ষীরার দর্শনীয় নলতা শরীফ ঐতিহাসিক গির্জা গুনাকরকাটি মাজার জোড়া শিবমন্দির তেঁতুলিয়া জামে মসজিদ শ্যামসুন্দর মন্দির সোনাবাড়িয়া মঠ মন্দির লিমপিড বোটানিক্যার গার্ডেন রুপসী দেবহাটা ম্যানগ্রোভ পর্যটন কেন্দ্র ঐতিহাসিক বনবিবি বটতলা দেবহাটা জমিদার বাড়ী টাকীর ঘাট (ভারত বাংলাদেশ সীমান্ত চিহ্নিত ইছামতি নদীর তীরে) ভারত বাংলাদেশ সীমান্ত চিহ্নিত ইছামতি নদী মোজাফফর গার্ডেন এন্ড রিসোর্ট মান্দারবাড়িয়া সমুদ্র সৈকত সাত্তার মোড়লের স্বপ্নবাড়ি প্রবাজপুর মসজিদ সাতক্ষীরার গুড়পুকুরের মেলা ঈশ্বরীপুর হাম্মাম খানা/ হাবসিখানা রায় বাহাদুর হরিচরণ চৌধুরীর জমিদার বাড়ি রেজওয়ান জমিদারের বাড়ি ও তেতুলিয়া শাহী মসজিদ বনবিবির বটগাছ আকাশলীনা ইকো ট্যুরিজম সেন্টার খান বাহাদুর কাজী সালামতুল্লা শাহী জামে মসজিদ সুকান্ত ঘোষ স্মরণে স্মৃতিসৌধ
☰ সাতক্ষীরা জেলার উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান
আকাশলীনা ইকো ট্যুরিজম সেন্টার

পরিচিতি

বাংলাদেশ তথা সাতক্ষীরার সবচেয়ে বড় থানা শ্যামনগরের সুন্দরবনের কোল ঘেসে অবস্থিত এই বিনোদন পার্কটি। সাতক্ষীরার এই থানা থেকে শুধু মাত্র স্থলপথে সুন্দরবন দেখা যায়। এখান থেকে আপনি সুন্দনবনের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারবেন। এখানে কৃত্রিম ভাবে সংরক্ষণ করা আছে নদীর ও সাগরের বিভিন্ন প্রজাতির প্রাণী। আছে জেলেদের ব্যবহৃত জলযানের নমুনা। জেলা প্রশাসনের ব্যবস্থাপনায় এই পর্যটন কেন্দ্রের সামনেই রয়েছে পৃথিবী র সর্ববৃহৎ ম্যানগ্রোভ বন সুন্দরবন। এখানে রয়েছে ট্রেল, জেটি ও নদীতে ভ্রমণের জন্য রয়েছে ইকো বোট। দুর -দুরান্তের পর্যটকদের জন্য রয়েছে আবাসিক ব্যবস্থা। পূর্নিমার রাতে সুন্দরবনের অপার সৌন্দর্য এই স্থানটি ইকো পর্যটকদের কাছে অন্যতম লোভনীয়। যারা অল্প সময়ে সুন্দরবন দেখতে চান তাদের জন্য এটি আদর্শ সাইট। এখানে একটি রেস্টুরেন্ট, পরকিং স্থান, ছোট যাদুঘরসহ পর্যটকদের জন্য হরেক রকম সুবিধা। বি.দ্র.- এখান থেকে ইত্যাদির ''সুন্দরবন'' পর্বটি ধারণ করা হয়েছিল।

অবস্থান ও যাতায়াত

উপজেলা সদর হতে মুন্সিগঞ্জ বাজার সংলগ্ন এই কেন্দ্রটি মাত্র ১৭ কিলোমিটার দুরে পাকা রাস্তার যেতে সময় লাগতে পারে ২৫-৩০ মিনিট। স্থানীয় যানবাহনের পাশাপাশি বাস এবং মাইক্রোযোগে যাওয়া যেতে পারে।


Total Site Views: 1022729 | Online: 8