×
কক্সবাজার জেলার উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান

মাহাসিংদোগ্রী বৌদ্ধ মন্দিরের ঐতিহাসিক পটভূমি পাতাবাড়ী বৌদ্ধ বিহার বড়ঘোপ সমূদ্র সৈকত চৌফলদন্ডী-খুরুশকুল সংযোগ সেতু কাকারা শাহওমর মাজার মনোমুগ্ধকর গোলাপ বাগান চিংড়ি রপ্তানি জোন বার্মিজ মার্কেট মাতামুহুরী নদী মগনামা ঘাট ইনানী সি বীচ কানা রাজার সুড়ঙ্গ আদিনাথ মন্দির বরইতলী মৎস্য খামার কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত রাডার স্টেশন হিমছড়ি রামকোট বৌদ্ধ বিহার লামারপাড়া বৌদ্ধবিহার রাবার বাগান ডুলাহাজরা সাফারি পার্ক মথিনের কূপ সেন্টমাটিন প্রবালদ্বীপ ছেঁড়াদ্বীপ, সেন্টমার্টিন, টেকনাফ মহেশখালী জেটি সোনাদিয়া দ্বীপ, মহেশখালী কুতুবদিয়া বাতিঘর বড় রাখাইন পাড়া বৌদ্ধ মন্দির লিডারশীপ ইউনিভার্সিটি কলেজ ট্রি এডভেঞ্চার -মেধাকচ্ছপিয়া জাতীয় উদ্যান। হিমছড়ি জাতীয় উদ্যান
☰ কক্সবাজার জেলার উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান
লামারপাড়া বৌদ্ধবিহার

লামারপাড়া বৌদ্ধ বিহারটি রামু উপজেলার ফঁতেখারকুল ইউনিয়নে অবস্থিত। রামুতে একদা যে রাখাইন বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা সংখ্যাগরিষ্ঠ ছিল তা এ ক্যাং দেখে যে কেউ সহজে অনুমান করতে পারবে। মায়ানমারের কারুশিল্পীদের দ্বারা নির্মিত কারুকার্যময় লামারপাড়া বৌদ্ধ বিহারটি দেশের এক অনন্য বৌদ্ধ ধর্মীয় স্থাপনা। লামারপাড়া বৌদ্ধ বিহারটি রাখাইনদের নিকট ‘আউ-ছা-ফা’ ক্যাং নামেও পরিচিত। ১৮০০ খ্রিস্টাব্দের দিকে থ্যেংঅংক্য ও তৎপুত্র ফাত এবং তাঁর পরিবার এ বিহারটি নির্মাণ করেন। এ বৌদ্ধ বিহারে ২২ ফুট উচ্চতা বিশিষ্ট পদ্মাসনে আসীন অষ্টধাতু দিয়ে নির্মিত বাংলাদেশে সর্ববৃহৎ বুদ্ধ মূর্তিটি সংরক্ষিত আছে। মূল্যবান ও দুষ্প্রাপ্য কাঠে তৈরী এ ক্যাংটি বর্তমানে দেশি-বিদেশি পর্যটকদের অন্যতম দর্শনীয় স্থানও বটে। এ সুন্দর বিহারের আশেপাশে আরো কয়েকটি ধর্মীয় স্থাপনা রয়েছে। ক্যাংগের পাশে ৩,৯০০ কেজির ওজনে বড় বড় দু’টি ঘন্টি রয়েছে যা প্রাচীন বৌদ্ধ ঐতিহ্যকে স্মরণ করে দে। রাখাইন সম্প্রদায়ের বৃহত্তম সংগঠন রাখাইন বুড্ডিষ্ট ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন (RBWA) ২১-২৩ এপ্রিল, ১৯৯৪ সালে এ বৌদ্ধ বিহারে একটি কর্মশালা আয়োজন করেছিল। রাখাইন ডেভেলপ্মেন্ট ফাউন্ডেশন (RDF)) এর আর্থিক সহায়তায় অনুষ্ঠিত এ কর্মশালায় দেশের রাখাইন অধ্যুষিত বিভিন্ন এলাকা থেকে প্রায় দু’শ জন রাখাইন নেতা অংশ গ্রহণ করেছিলেন।


রামু | সড়ক পথে


Total Site Views: 995973 | Online: 4