×
কুমিল্লা জেলার উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান

বায়তুল আজগর জামে মসজিদ নূর মানিকচর জামে মসজিদ কবি তীর্থ দৌলতপুর গোমতী নদী ময়নামতি ওয়ার সেমেট্রি ধর্মসাগর দিঘি বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমী, বার্ড, কুমিল্লা রানী ময়নামতির প্রাসাদ বাখরাবাদ গ্যাস ফিল্ড কুমিল্লার জাহাপুর জমিদার বাড়ি রাজেশপুর বন বিভাগের পিকনিক স্পট নবাব ফয়জুন্নেছার পৈতৃক বাড়ি বিজয়পুরের মৃৎশিল্প লালমাই পাহাড় মহাতীর্থ, চন্ডীমুড়া মন্দির শালবন বৌদ্ধ বিহার ময়নামতি জাদুঘর নব শালবন বিহার বীরচন্দ্র গণপাঠাগার ও নগর মিলনায়তন রূপবান মুড়া ও বিহার ইটাখোলা মুড়া ৪০০ বছরের পুরোনো জগন্নাথ দেবের মন্দির
☰ কুমিল্লা জেলার উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান
ময়নামতি ওয়ার সেমেট্রি

পরিচিতি

কুমিল্লা শহর থেকে প্রায় ৭ কিলোমিটার দূরে কুমিল্লা ক্যান্টনমেন্টের খুব কাছেই এই যুদ্ধ সমাধির অবস্থান।

ময়নামতি ক্যান্টনমেন্টে অবস্থিত ওয়ার সিমেট্রিতে দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধের সময় নিহত সৈনিকদের সমাধিস্থল। বাংলাদেশ, আসাম ও মিয়ানমারে ৯টি সমাধিক্ষেত্র তৈরি করা হয় এর মধ্যে বাংলাদেশে ২টি নির্মাণ করা হয়, একটি কুমিল্লাতে এবং অন্যটি চট্রগ্রামে।

এই সমাধি ক্ষেত্রটিতে ১৯৩৯ থেকে ১৯৪৫ সাল পর্যন্ত দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় নিহত ব্রিটিশ, কানাডিয়ান, অস্ট্রেলিয়ান, আফ্রিকান, জাপানী, আমেরিকান, ভারতীয় ও নিউজিল্যান্ডের ৭৩৭ জন সৈন্যের সমাধিস্থল।

এই সমাধিক্ষেত্রটি Commonwealth War Graves Commission (CWGC) কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল ও তারাই এই সমাধিক্ষেত্র পরিচালনা করেন। প্রতি বছর নভেম্বর মাসে সকল ধর্মের ধর্মগুরুদের সমন্বয়ে এখানে একটি বার্ষিক প্রার্থণাসভা অনুষ্ঠিত হয়।

সমাধিক্ষেত্রটিতে প্রচুর গাছ রয়েছে। ভিতরে ঢুকে দেখে নিতে পারেন ছায়াঘেরা স্নিগ্ধ নৈসর্গিক পরিবেশে অবস্থিত ‘ময়নামতি ওয়ার সিমেট্রি’। প্রতিদিন সকাল ৮ টা-১২টা এবং ২টা-৫টা পর্যন্ত এখানে প্রবেশের সুযোগ পাবেন। 


অবস্থান ও যাতায়াত

কুমিল্লা শহর থেকে প্রায় ৭ কিলোমিটার দূরে কুমিল্লা ক্যান্টনমেন্টের খুব কাছেই এই যুদ্ধ সমাধির অবস্থান।

ক্যান্টমেন্টে নেমে বাম দিকের কোম্পানীগঞ্জ/ সিলেটগামী রাস্তায় মিনিট পাচেক হাটলেই বা অটোতে পাচ টাকা করে দিলেই নিয়ে যাবে, কুমিল্লা শহর হতে ট্যাক্সি যোগে যাওয়া যায়।


Total Site Views: 955128 | Online: 11