×
নোয়াখালী জেলার উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান

নিঝুম দ্বীপ বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ মোঃ রুহুল আমিন গ্রন্থাগার ও স্মৃতি জাদুঘর গান্ধী আশ্রম ট্রাস্ট ও স্মৃতি জাদুঘর বজরা শাহী জামে মসজিদ বাবুপুর শ্রীপুর (টট্ররিয়া)গাজী বাড়ী মাজার শরিফ রায় চৌধুরী জমিদার বাড়ী মুসাপুর ক্লোজার সৈকত কোর্ট বিল্ডিং দীঘি ও পৌর পার্ক নিঝুমদ্বীপ জাতীয় উদ্যান
☰ নোয়াখালী জেলার উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান
মুসাপুর ক্লোজার সৈকত

পরিচিতি

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার মুছাপুর ইউনিয়নের ওপর দিয়ে বয়ে গেছে ছোট ফেনী নদী। এখানেই ডিঙি নৌকা আর ঢেউয়ের মিতালি। দুই নদীর কূলঘেঁষা সবুজ বনায়ন। পশ্চিমে সোনালি ফসলের মাঠ।আশপাশের পাকা-কাঁচা সড়কগুলোর দুপাশে সারিবদ্ধ গাছ।

এক কথায় অপরূপ সৌন্দর্য মিন্তুত এলাকাটিমুসাপুর ক্লোজার সৈকতনামে পরিচিত। দর্শনার্থীদের কাছে অঘোষিত পর্যটন কেন্দ্র হয়ে উঠেছে এটি। ক্লোজারের দুই পাশে আছে পাথরের গাঁথুনি, পাশে মুছাপুর রেগুলেটর।

পাথর রেগুলেটরে বসে দর্শনার্থীরা উপভোগ করেন প্রাকৃতিক স্নিগ্ধতা। গত বছরও নদীর ভাঙনে এখানকার ভিটেমাটি বিলীন হয়ে যাচ্ছিল। ভুক্তভোগীদের দাবির মুখে এখানে ক্লোজার নির্মাণ করা হয়।

ছোট ফেনী নদীর ওপর উত্তর-দক্ষিণমুখী নির্মিত বাঁধের (ক্লোজার) দুপাশে পাথর গেঁথে দেওয়া হয়েছে। ক্লোজারের দক্ষিণ-পূর্ব পাশে বন বিভাগের বনায়ন। দক্ষিণে বামনিয়া নদীর সঙ্গে পুরনো ডাকাতিয়া, নতুন ডাকাতিয়া ছোট ফেনী নদীর পানি সরবরাহের জন্য নির্মিত রেগুলেটর।পশ্চিমে বাগতারা বাজারের সঙ্গে সংযুক্ত পাকা সড়ক। দুই পাশে সারিবদ্ধ ঝাউ গাছ। পশ্চিমে হাজার হাজার একর ফসলি জমি। পানি যাতায়াতের জন্য খনন করা মাটির স্তূপে নির্মিত কৃত্রিম পাহাড়। এসব নয়নাভিরাম প্রাকৃতিক দৃশ্যই টেনে আনছে দর্শনার্থীদের।

অবস্থান ও যাতায়াত

দেশের যে কোনো স্থান থেকে নোয়াখালী জেলা শহরের মাইজদী হয়ে কোম্পানীগঞ্জের বসুরহাট চলে আসুন। সেখান থেকে সিএনজি চালিত অটোরিকশায় চলে যান মুসাপুর ক্লোজার সৈকতে।   


Total Site Views: 845982 | Online: 7