×
ফেনী জেলার উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান

চৌধুরী বাড়ি মসজিদ শমসের গাজী দিঘী বিলোনিয়া স্থল বন্দর সোনাগাজী মুহুরী সেচ প্রকল্প পাগলা মিঞাঁর মাজার শিলুয়ার শীল পাথর রাজাঝীর দীঘি বিজয় সিংহ দীঘি ভাষা শহীদ আবদুস সালাম গ্রন্থাগার ও স্মৃতি জাদুঘর শমসের গাজীর বাঁশের কেল্লা ও রিসোর্ট মুবারক শাহ মসজিদ বাঁশপাড়া জমিদার বাড়ি সেনেরখিল জমিদার বাড়ি প্রতাপপুর জমিদার বাড়ি কালিদহ বরদা বাবু জমিদার বাড়ী শর্শদি মাদ্রাসা মসজিদ (মোহম্মদ আলী মসজিদ) অচিন গাছ ফেনী জেলা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ফেনী সরকারি কলেজ শর্শদি দীঘি দেওয়ানগঞ্জ সড়ক,ফেনী সদর বেড়াবাড়ীয়া রাবার ড্যাম এম আর রাবার বাগান বিলোনিয়া মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতিস্তম্ভ এককুইল্লা দীঘি/কুয়া এবং 'সুড়ঙ্গ' সাত মঠ / সাত মন্দির
☰ ফেনী জেলার উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান
ফেনী সরকারি কলেজ

পরিচিতি

কলেজ প্রাঙ্গনে গেলেই প্রথমে চোখে পড়বে কলেজের লাল বিল্ডিংটি। এটি ফেনীর প্ৰাচীন স্থাপনা গুলোর একটি। ১৯৫২-৫৩ সালে ভবনটি নির্মাণ করা হয়। এই ভবনটি বর্তমানে ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের তালিকায় রয়েছে।

চলুন এক নজরে জেনে নিই ফেনী কলেজের ইতিহাস:

১৯১৮ সালের দিকেই কলেজটি প্রতিষ্ঠার জন্য বিভিন্ন উদ্যোগ হাতে নেওয়া হয়। ১৯২২ সালে খান বাহাদুর বজলুল হক একটি ট্রাস্টি বোর্ড গঠন করেন এবং তখন থেকেই মূলত কলেজটির যাত্রা শুরু হয়। ফেনী অঞ্চলের জনগণের টাকায় ফেনী কলেজ প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। ফেনী হাই স্কুলের (বর্তমানে ফেনী পাইলট হাই স্কুল) বার্ষিক টাকা আনা খাজনামূলে দান করা জমিতে (বর্তমানে যেখানে লাল বিল্ডিং) কলেজের কার্যক্রম শুরু হয়। পরে আশেপাশের কিছু খাসজমি ব্যক্তিমালিকীয় জমি দান ক্রয় সূত্রে কলেজের অন্তর্ভুক্ত হয়। বর্তমান কলেজের আয়তন .২৫ একর (ফেনী মৌজায় . একর, ফলেশ্বর মৌজায় একর)

১৯২২ সালে একটি কলেজ গৃহ, পুকুরের দু'পাশে একটি হিন্দু একটি মুসলিম হোস্টেল নিয়ে কলেজের যাত্রা শুরু হয়েছিল। তখন ১৪৬ জন শিক্ষার্থী নিয়ে আই. ক্লাস চালু হয়। যার মধ্যে ৭১জন ছিল মুসলিম। ১৯২৪ সালে কলেজটিকে প্রথম শ্রেণির মর্যাদায় উন্নীত করে কলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে নেওয়া হয়। ১৯২৬ সালের ১০ আগষ্ট তদানিন্তন বৃটিশ ভারতের মহামান্য গভর্নর স্যার হিউ ল্যান্সডাউন স্টিফেনশন কে সি আই, এস আই সি এস কলেজের মূল ভবনের দোতলা উদ্ভোধন করেন।

১৯৩৯ সালে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হলে ব্রিটিশ সৈন্যরা ফেনী কলেজে অবস্থান নেয়। সময় ফেনী কলেজ ভবন যুদ্ধকালীন মিত্রবাহিনীর সামরিক হাসপাতাল হিসেবে ব্যবহৃত হওয়ায় কলেজের কার্যক্রম অস্থায়ী ভিত্তিতে ব্রাহ্মণবাড়িয়াতে ফেনী কলেজ নামে স্থানান্তরিত হয় এবং যুদ্ধ শেষে কলেজটি আবার স্ব-স্থানে ফিরে আসে। পরপবর্তীতে সেখানে ওই অবকাঠামোর ওপরই ব্রাহ্মণবাড়িয়া কলেজ প্রতিষ্ঠা করা হয়।

কলেজটিতে আই.কম কোর্স ১৯৪১ সালে; আই.এস.সি কোর্স ১৯৪৭ সালে; বি.কম কোর্স ১৯৬২ সালে; বি.এস.সি কোর্স ১৯৬৪ সালে চালু হয়। স্বাধীনতার পর ১৯৭৯ সালের মে কলেজটি জাতীয়করণ করা হয়। নব পর্যায়ে অনার্স কোর্স প্রবর্তিত হয় ১৯৯৭ সালে। বর্তমানে ১৫টি বিষয়ে অনার্স কোর্স, ১০টি বিষয়ে মাস্টার্স ১ম পর্ব (প্রিলিমিনারি) ৭টি বিষয়ে মাস্টার্স শেষ পর্ব কোর্স চালু রয়েছে।

অবস্থান ও যাতায়াত 

ফেনী সরকারি কলেজ ফেনী শহরের প্রাণকেন্দ্রে কলেজ রোডে অবস্থিত। দোয়েল চত্তর থেকে হেটে যাওয়া যায়।


Total Site Views: 845975 | Online: 5