×
রাঙ্গামাটি জেলার উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান

কাপ্তাই পানি বিদ্যুৎ কেন্দ্রের স্পিলওয়ে কর্ণফুলী হ্রদ পর্যটন মোটেল ও ঝুলন্ত সেতু সুবলং ঝর্ণা উপজাতীয় যাদুঘর কাপ্তাই জাতীয় উদ্যান পেদা টিং টিং টুকটুক ইকো ভিলেজ যমচুক শ্রদ্ধেয় বনভান্তের জন্ম স্থান মোরঘোনায় স্মৃতি স্তম্ভ ও স্মৃতি মন্দির(নির্মাণাধীণ) পুলিশ স্পেশাল ট্রেনিং স্কুল রাইংখ্যং পুকুর নির্বানপুর বন ভাবনা কেন্দ্র বীরশ্রেষ্ঠ ল্যান্সেনায়েক মুন্সী আব্দুর রউফ স্মৃতি ভাস্কর্য রাজবন বিহার ঐতিহ্যবাহী চাকমা রাজার রাজবাড়ি উপজাতীয় টেক্মটাইল মার্কেট রাঙ্গামাটি ডিসি বাংলো ফুরমোন পাহাড় রাঙ্গামাটি-কাপ্তাই সংযোগ সড়ক কর্ণফুলী পেপার মিলস্ লিমিটেড কর্ণফুলি পানি বিদ্যুৎ কেন্দ্র নৌ বাহিনীর পিকনিক স্পট চিৎমরম বৌদ্ধ বিহার রাজস্থলী ঝুলন্ত সেতু বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফ এর সমাধিস্থল ওয়াগ্গা চা এস্টেট সাজেক ভ্যালী ন-কাবা ছড়া ঝর্ণা বেতবুনিয়া ভূ-উপগ্রহ কেন্দ্র কাট্টলী বিল তিনটিলা বনবিহার
☰ রাঙ্গামাটি জেলার উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান
ন-কাবা ছড়া ঝর্ণা

পরিচিতি

প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের অনন্য মনলোভা দর্শণীয় স্থান হলো ন-কাবা ছড়া ঝর্ণা। পানি প্রবাহিত ছড়ায় পাথরের উপর আঁকা-বাঁকা পাহাড়ি পথ হেঁটে এই ঝর্ণা দেখতে যাওয়াও রোমাঞ্চকর। এই ঝর্ণায় দৃষ্টিনন্দন শৈল্পিক সৌন্দর্য অবলোকন করে চারদিকে তাকালে প্রকৃতির বিচিত্র রুপ ও পাহাড়ি ঢেউ ছাড়া আর কিছুই নজরে পড়ে না। বিলাইছড়ি সদরে ধুপ্যাচর ও দীঘলছড়ি এ দু সেতুর কাছে দর্শণার্থীদের সমাগম ঘটে। এখানে দর্শণার্থীরা লেকের স্বচ্ছ জলরাশি ও সবুজ পাহাড়ের দুরের দুশ্যাবলী অবলোকন করে। এই স্থানে আসলে উপজাতীয় সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য বাস্তবে দেখা ও জানা যায়। চারদিকে সবুজ অরণ্যে ঘেরা প্রকৃতির অপরুপ সৌন্দর্যের আরেক দর্শণীয় স্থান হলো প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের অনন্য মনলোভা দর্শণীয় স্থান ন-কাবা ছড়া ঝর্ণা। চারদিক সবুজ অরণ্যবেষ্টিত প্রকৃতির অপরুপ সৌন্দর্য ও ঐতিহ্যের আরেক দর্শণীয় স্থান হলো বিলাইছড়ির পাংখোপাড়া। বিলাইছড়ি সদর থেকে প্রায় ২ ঘন্টা সময়ে ইঞ্জিনচালিত বোটে করে পাংখোপাড়ায় যেতে হয়। সেখানে দেখা যাবে আঁকা-বাঁকা সর্পিল নদীপথ। মনোমুগ্ধকর সবুজের মুগ্ধতম সুউচ্চ সিড়িঁ বেয়ে পাহাড়ের চূড়ায় পাংখোয়া সম্প্রদায়ের আবাসস্থলে যাওয়া ও হেলিপ্যাডে উঠে প্রকৃতির নিসর্গ অবলোকন করা যাবে। হেলিপ্যাডটি পাহাড়ের চূড়ায় খুবই উঁচুতে হওয়ায় এটিকে বিলাইছড়ির ছাদ বলা যেতে পারে। ওখান থেকে বিলাইছড়ি টিএন্ডটি টাওয়ার, চারদিকে সবুজে ঢাকা পাহাড়, হৃদের উপরি অংশের প্রকৃতির নিসর্গ উপভোগ করা যায়। তাছাড়া যদি ফারুয়ায় যানর তাহলে যাবার পথে দেখতে পানেব স্থাপত্যকীর্তির ন্যায় অনিন্দ্য সুন্দর শৈল্পিক পাহাড়।


অবস্থান ও যাতায়াত

ন-কাবা ছড়া, বিলাইছড়ি, রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা। যাতায়াত ব্যবস্থাঃ-ঢাকা থেকে শ্যামলী, মডার্ণ ও এস আলম বাসে করে কাপ্তাই এসে কাপ্তাই জেটিঘাটস্থ লঞ্চঘাট থেকে ইঞ্জিনবোটে করে বিলাইছড়ি আসবেন। বন্দরনগরী চট্টগ্রাম থেকে ৩/৪ ঘন্টার মধ্যে বিলাইছড়ি আসা যায়। কেউ চট্টগ্রাম থেকে বিলাইছড়ি আসলে বহদ্দারহাট বাস টার্মিনাল থেকে প্রথমত কাপ্তাই জেটিঘাটে আসবেন। প্রতিদিন সাড়ে ৭ টায় রাঙ্গামাটির তবলছড়ি ঘাট থেকে ইঞ্জিনবোট যাত্রী নিয়ে সকাল ১০টার মধ্যে বিলাইছড়ি পৌছেঁ। ওই বোটটি আবার বিলাইছড়ি থেকে দুপুর ২টার মধ্যে রাঙ্গামাটির উদ্দেশ্যে ছাড়ে। বিলাইছড়ি সদরস্থ লঞ্চঘাট নতুবা নলছড়ি নামক স্থান থেকে ইঞ্জিনবোটে করে বিলাইছড়ি ডেবারা মাথায় এসে ওখান থেকে ন-কাবা ছড়া ঝর্ণায় যেতে হবে।


Total Site Views: 1081629 | Online: 11