×
রাঙ্গামাটি জেলার উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান

কাপ্তাই পানি বিদ্যুৎ কেন্দ্রের স্পিলওয়ে কর্ণফুলী হ্রদ পর্যটন মোটেল ও ঝুলন্ত সেতু সুবলং ঝর্ণা উপজাতীয় যাদুঘর কাপ্তাই জাতীয় উদ্যান পেদা টিং টিং টুকটুক ইকো ভিলেজ যমচুক শ্রদ্ধেয় বনভান্তের জন্ম স্থান মোরঘোনায় স্মৃতি স্তম্ভ ও স্মৃতি মন্দির(নির্মাণাধীণ) পুলিশ স্পেশাল ট্রেনিং স্কুল রাইংখ্যং পুকুর নির্বানপুর বন ভাবনা কেন্দ্র বীরশ্রেষ্ঠ ল্যান্সেনায়েক মুন্সী আব্দুর রউফ স্মৃতি ভাস্কর্য রাজবন বিহার ঐতিহ্যবাহী চাকমা রাজার রাজবাড়ি উপজাতীয় টেক্মটাইল মার্কেট রাঙ্গামাটি ডিসি বাংলো ফুরমোন পাহাড় রাঙ্গামাটি-কাপ্তাই সংযোগ সড়ক কর্ণফুলী পেপার মিলস্ লিমিটেড কর্ণফুলি পানি বিদ্যুৎ কেন্দ্র নৌ বাহিনীর পিকনিক স্পট চিৎমরম বৌদ্ধ বিহার রাজস্থলী ঝুলন্ত সেতু বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফ এর সমাধিস্থল ওয়াগ্গা চা এস্টেট সাজেক ভ্যালী ন-কাবা ছড়া ঝর্ণা বেতবুনিয়া ভূ-উপগ্রহ কেন্দ্র কাট্টলী বিল তিনটিলা বনবিহার
☰ রাঙ্গামাটি জেলার উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান
শ্রদ্ধেয় বনভান্তের জন্ম স্থান মোরঘোনায় স্মৃতি স্তম্ভ ও স্মৃতি মন্দির(নির্মাণাধীণ)

পরিচিতি

রাঙ্গামাটি সদর উপজেলাধীন ২ নং মগবান ইউনিয়নের তৎকালীন মোরঘোনা নামক গ্রামে ১৯২০ সালের ৮ই জানুয়ারী তারিখে শ্রদ্ধেয় বন ভান্তে জন্ম গ্রহন করেন। বর্তমানে মোরঘোনা নামক গ্রামটি কাপ্তাই বাঁধের ফলে প্রায় ৫০ ফুট পানির নীচে অবস্থান করছে।উক্ত জায়গাটি চিন্হ্নিত করিয়া ৫০ ফুট পানির নীচ হইতে শ্রদ্ধেয় বনভান্তের জন্ম ভিটায় স্থানীয় এলাকাবাসী জন্ম স্থানকে চিহ্নিত করার জন্য একটি জন্মস্মৃতি স্তম্ভ নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়। বর্তমানে স্মৃতি স্তম্ভটির নির্মাণ কাজ প্রায় সমাপ্তীর পথে। স্মৃতি স্তম্ভটির ৪০০ গজের মধ্যে রাঙ্গামাটি-কাপ্তাই সড়কের পাশে আর ও একটি শ্রদ্ধেয় বন ভান্তে জন্ম স্মৃতি মন্দির রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের অর্থায়নে নির্মাণাধীণ আছে।


অবস্থান ও যাতায়াত

রাঙ্গামাট সদর উপজেলাধীন ২ নং মগবান ইউনিয়নের বড়াদম নামক জায়গায় অবস্থিত। রাঙ্গামাটি শহর থেকে রাঙ্গামাটি-আসামবস্তী -কাপ্তাই সড়কে বড়াদম পর্যন্ত যে কোন যানবাহনে যাওয়া যায়।


Total Site Views: 1091467 | Online: 12