×
টাঙ্গাইল জেলার উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান

আতিয়া মসজিদ উপেন্দ্র সরোবর এলেঙ্গা রিসোর্ট বঙ্গবন্ধু বহুমূখী সেতু ববনগ্রামের গনকবর ধলাপাড়া চৌধুরীবাড়ী ও কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ মহেড়া জমিদার বাড়ী নাগরপুর চৌধুরী বাড়ী (জমিদার বাড়ি) কমপ্লেক্স পাকুটিয়া জমিদার বাড়ী কমপ্লেক্স ভারতেশ্বরী হোমস ধনবাড়ী জমিদারবাড়ি/ নবাব প্যালেস মধুপুর জাতীয় উদ্যান
☰ টাঙ্গাইল জেলার উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান
ধনবাড়ী জমিদারবাড়ি/ নবাব প্যালেস

পরিচিতি
সারা দেশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা জমিদারবাড়ির শতবর্ষী পুরোনো দেয়ালগুলো আমাদের কালের সাক্ষী। ক্ষয়ে পড়া চুন- সুরকির আস্তরণগুলোয় লুকিয়ে আছে ঐশ্বর্যমণ্ডিত ঐতিহ্য। জমিদারের বিলাসী প্রাসাদের কারুকার্যখচিত দেয়ালগুলো শুধুই দেয়াল নয়, যেন অক্লান্ত ইতিহাস রচয়িতার অলঙ্কারখচিত জীবন্ত ইতিহাসের বইয়ের পাতা, যেখান থেকে আমাদের মত নবীন চোখ পড়ে নিতে পারে হাজার বছরের ইতিহাস। খান বাহাদুর সৈয়দ নওয়াব আলী চৌধুরীর (১৮৬৩-১৯২৯) নাম শুনেছেন নিশ্চয়ই? হ্যাঁ, ঠিকই শুনেছেন।

তিনি ছিলেন ঢাকা বিশ্বদ্যিালয়ের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা। ধারণা করা হয়, মোগল সম্রাট জাহাঙ্গীরের আমলে ধনপতি সিংহকে পরাজিত করে মোগল সেনাপতি ইস্পিঞ্জর খাঁ ও মনোয়ার খাঁ ধনবাড়ীতে জমিদারি প্রতিষ্ঠা করেন। তাঁদের কয়েক পুরুষ পরের নবাব ছিলেন সৈয়দ জনাব আলী। সৈয়দ জনাব আলী ছিলেন সৈয়দ নওয়াব আলী চৌধুরীর বাবা। তিনি তরুণ বয়সে মারা যান। এই জমিদার বাড়িটিতে ৫০ টাঁকা প্রবেশ মুল্য নিয়ে থাকেন। এখানে আগত দর্শনার্থীদের জন্য প্রাসাদের ভেতরের বেশ কয়েকটি কামরা ঘুরে দেখার সুযোগ আছে। তা ছাড়া বারান্দাতেও শোভা পাচ্ছে মোগল আমলের নবাবি সামগ্রী, সেগুলো ছুঁয়ে দেখতে পারেন। মোগল আমলের আসবাবপত্র আপনাকে মুগ্ধ করবে।

প্যালেসটির পাশেই রয়েছে ৩০ বিঘার বিশালাকার দিঘি। দিঘির পাশেই রয়েছে ৭০০ বছরের পুরোনো এক মসজিদ। মোগল স্থাপত্যের নিদর্শন এই মসজিদের মোজাইকগুলো এবং মেঝেতে মার্বেল পাথরে নিপুণ কারুকার্য অসাধারণ। মসজিদটির পাশে একটি কক্ষ রয়েছে, যা নবাব বাহাদুর সৈদয় নওয়াব আলী চৌধুরীর মাজার। ১৯২৯ সালে নবাবের মৃত্যুর পর থেকে এখানে ২৪ ঘণ্টা কোরআন তিলাওয়াত হচ্ছে, যা এখনো এক মিনিটের জন্য বন্ধ হয়নি। বর্তমানে সাতজন কারি নিযুক্ত রয়েছেন। তাঁরা প্রতি দুই ঘণ্টা পরপর একেকজন কোরআন তিলাওয়াত করে থাকেন।

অবস্থান ও যাতায়াত

জমিদারবাড়িটি টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে অবস্থিত। মহাখালীর টাঙ্গাইল বাসস্ট্যান্ড থেকে ঢাকা-ধনবাড়ী সরাসরি বাস সার্ভিস চালু আছে। বিনিময়, মহানগর কিংবা শুভেচ্ছা পরিবহনে ১৫০ টাকা ভাড়ায় পৌঁছাতে পারবেন ধনবাড়ী। ধনবাড়ির পাশেই জমিদার বাড়িটি, যে কাউরে জিজ্ঞাসা করলেই দেখিয়ে দিবে।


Total Site Views: 848287 | Online: 7