×
মানিকগঞ্জ জেলার উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান

বালিয়াটি প্রাসাদ, সাটুরিয়া প্রশিকা মানবিক উন্নয়ন কেন্দ্র, কৈট্টা, সাটুরিয়া তেওতা জমিদার বাড়ী, শিবালয় তেওতা নবরত্ন মঠ, শিবালয় মানিকগঞ্জের মত্তের মঠ রামকৃষ্ণ মিশন সেবাশ্রম শিব সিদ্ধেশ্বরী মন্দির মানিকগঞ্জের শ্রী শ্রী আনন্দময়ী কালীবাড়ী মানিকগঞ্জের গৌরাঙ্গ মঠ নারায়ন সাধুর আশ্রম মাচাইন গ্রামের ঐতিহাসিক মাজার ও পুরোনো মসজিদ বাঠইমুড়ী মাজার ঈশ্বর চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়, সাটুরিয়া নাহার গার্ডেন (পিকনিক স্পট), সাটুরিয়া শহীদ রফিক স্মৃতি যাদুঘর কবিরাজবাড়ী, মানিকগঞ্জ সদর
☰ মানিকগঞ্জ জেলার উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান
মানিকগঞ্জের গৌরাঙ্গ মঠ

পরিচিতি

১৯২৫ খৃীষ্টাব্দের দিকে বালিয়াটির নয়া তরফের জমিদার মনমোহন রায় চৌধুরী তার স্বর্গীয় পত্নী ইন্দুবালা এবং আদরের দুলালী সুনীতিবালার পুণ্যস্মৃতি রক্ষার্থে বালিয়াটির বিখ্যাত এবং ভারতের উল্লেখযোগ্য গদাই গৌরাঙ্গ মঠের স্বীকৃতপ্রাপ্ত শাখা মঠ স্থাপন করেন। সুউচ্চ চূড়া সমন্বিত মারবেল পাথরের গাত্রাবড়নে উচ্চ পাদপীঠে নির্মিত এই গদাই গৌরাঙ্গ মঠটি মানিকগঞ্জে পুরাকীর্তির গৌরব। তবে ১৯৭১ সনে স্বাধীনতা সংগ্রামের সময় পাকিস্তান বাহিনী মঠটি ভাঙ্গার চেষ্টা করে এবং পাথরের তৈরী গদাই গৌরাঙ্গ মূর্তি ভেঙ্গে ফেলেছে। এক সময় বৎসরান্তে এ মঠে সমারোহের মধ্য দিয়ে পূজা অর্চনা ও ধর্মালোচনা হতো। দুর দুরান্ত থেকে ভক্ত আর অনুরাগীরা এখানে এসে জমা হতো। বর্তমানে মন্দিরটি কালের স্বাক্ষী হিসেবে টিকে আছে।

অবস্থান ও যাতায়াত

মানিকগঞ্জ থেকে দূরত্ব ১৮ কিঃমিঃ মানিকগঞ্জ থেকে সড়ক পথে বাসযোগে যাওয়া যায়্। দূরত্ব ১৮ কিঃমিঃ। ভাড়া ১৫/- টাকা। রাত্রি যাপনের ব্যবস্থা নেই।


Total Site Views: 1016825 | Online: 8