×
সিরাজগঞ্জ জেলার উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান

নবরত্ন মন্দির হযরত মখদুম শাহদৌলা (রহঃ) এর মাজার ও মসজিদ বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র শাহজাদপুরের রবীন্দ্র-কাচারিবাড়ি জয়সাগর দিঘি বঙ্গবন্ধু স্কয়ার ইলিয়ট ব্রীজ সিরাজগঞ্জ শহর রক্ষা বাধ বঙ্গবন্ধু যমুনা ইকোপার্ক মুক্তির সোপান সৈয়দ ইসমাইল হোসেন সিরাজীর বাড়ী ভোলা দেওয়ানের মাজার ধুবিল কাটার মহল জমিদার বাড়ী আটঘরিয়া জমিদার বাড়ী সান্যাল জমিদার বাড়ীর শিব দুর্গা মন্দির চায়না বাঁধ
☰ সিরাজগঞ্জ জেলার উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান
শাহজাদপুরের রবীন্দ্র-কাচারিবাড়ি

পরিচিতি

বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে এসেছেন অনেকবার। এখানে অবস্থানকালে কবিতা, প্রবন্ধ, ছোটগল্পসহ অনেক অমর রচনাবলী লিখেছেন কবি। তিনি নেই কিন্তু তার পায়ের চিহ্ন রয়ে গেছে কাচারিবাড়ি সহ শাহজাদপুরের বিভিন্ন স্থানে। সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার দিলরুবা বাসস্ট্যন্ড থেকে একুটু দূরেই বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্মৃতিবিজড়িত রবীন্দ্র কাচারিবাড়ি। কবির পূর্ব পুরুষরা তাদের শাহজাদপুরের জমিদারি পরিচালনা করতে ইংরেজ নীলকরদের কাছ থেকে ভবনটি কিনে নেয়ায় তা কুঠিবাড়ি হিসেবেও পরিচিত। বর্তমানে কবির পরশধন্য এই বাড়িটি রক্ষনাবেক্ষণে বাংলাদেশ প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর দায়িত্ব নিয়েছে। এই ভবন চত্বরে নতুন করে নির্মাণ করা হয়েছে রবীন্দ্র অডিটোরিয়াম। বর্তমানে কুঠিবাড়িটির উত্তরদিকের প্রধান ফটকের সামনে হাট কর্তৃপক্ষ অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করায় তা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। কুঠিবাড়ির দক্ষিণ দিকে ছিল করতোয়া নদীর একটি শাখা। কবিগুরু এই নদী দিয়ে তাঁর বোট 'চিত্রা' ও 'পদ্মা' দিয়ে যাতায়াত করতেন। এখন সেই নদী আর নেই। নদী ভরাট করে দিয়ে কাচারিবাড়ির প্রবেশপথ তৈরি করা হয়েছে। তিন তৌজির অন্তর্গত ডিহি শাহজাদপুরের জমিদারি পূর্বে নাটোরের রাণী ভবানীর জমিদারির অংশ ছিল। ১৮৪০ সালে শাহজাদপুরের জমিদারি নিলামে উঠলে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের পিতামহ প্রিন্স দারকানাথ ঠাকুর মাত্র তের টাকা দশ আনায় এই জমিদারি কিনে নেন। জমিদারির সঙ্গে সঙ্গে এখানকার কাচারিবাড়ির ঠাকুর পরিবারের হস্তগত হয়। এর আগে কাচারিবাড়ির মালিক ছিল নীলকর সাহেবরা। ১৮৯০-১৮৯৬ পর্যন্ত একাধিকবার কবি জমিদারি দেখাশোনার জন্য শাহজাদপুরে এসেছেন। ১৮৯০ সালে প্রথম কবিগুরু শাহজাদপুরে এসেছিলেন। তখনও সিরাজগঞ্জ-ঈশ্বরদী রেলপথ স্থাপিত হয়নি। তিনি আসতেন কলকাতা থেকে ট্রেনে সাড়াঘাট অর্থাত্ পাকশি স্টেশনে। সেখান থেকে শাহজাদপুর আসতেন তার বোট 'পদ্মা' কিংবা 'চিত্রা'য় চড়ে। অবশ্য ঈশ্বরদী-সিরাজগঞ্জ রেলপথ স্থাপনের পর উল্লাপাড়া স্টেশন থেকে পালকিতে চড়ে যাতায়াত করেছেন কখনো কখনো। এখানে তিনি পায়ে হেঁটে, পালকি ও নৌকাযোগে ঘুরে বেড়িয়েছেন।


অবস্থান ও যাতায়াত

সিরাজগঞ্জ থেকে ৪০.২ কিলোমিটার দুরে শাহজাদপুর উপজেলায় অবস্থিত।


Total Site Views: 850682 | Online: 2