×
মৌলভীবাজার জেলার উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান

মাধবকুন্ড জলপ্রপাত, বড়লেখা মাধবকৃন্ড ইকোপার্ক বাইক্কাবিল হাকালুকিহাওর বর্ষিজোড়া ইকোপার্ক বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী হামিদুর রহমান স্মৃতিসৌধ লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান, শ্রীমঙ্গল মাধবপুর চা বাগান ও লেক মনিপুরী পল্লী মনু ব্যারেজ বাংলাদেশ চা গবেষণা ইনষ্টিটিউট শ্রীমঙ্গল চা বাগান, চা গবেষণা কেন্দ্র ও ৭–রঙ্গা চা হাম হাম ঝর্ণা মৌলভীবাজারে মণিপুরী সম্প্রদায়ের ধর্মীয় উৎসব “রাসলীলা ও মেলা ক্যামেলিয়া লেক
☰ মৌলভীবাজার জেলার উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান
মাধবকুন্ড জলপ্রপাত, বড়লেখা

পরিচিতি

দেশের সর্ববৃহৎ জলপ্রপাত মাধবকুণ্ডের অবস্থান বাংলাদেশের সিলেট বিভাগের অন্তর্গত মৌলভীবাজার জ়েলার বড়লেখা উপজেলার কাঁঠালতলিতে। মাধবকুণ্ডের সুউচ্চ পাহাড় শৃঙ্গ থেকে শুভ্র জলরাশি অবিরাম গড়িয়ে পড়ছে। আর এই জলপ্রপাতের স্ফটিক জলরাশি দেখতে পুরো বছরই পর্যটকদের আনাগুনা পরিলক্ষিত হয় মাধবকুণ্ডে। পর্যটনকেন্দ্র হিসাবে অন্যতম বিখ্যাত এই স্থানটিতে বর্তমানে বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনের ইকোপার্ক, রেস্টহাউজ ও রেস্টুরেন্ট রয়েছে। এই ইকোপার্কের অন্যতম আকর্ষণ হলো মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত, পরিকুণ্ড জলপ্রপাত, শ্রী শ্রী মাধবেশ্বরের তীর্থস্থান এবং চা বাগান। এ জলপ্রপাতের সুচনা কখন হয়েছিল তার সঠিক তথ্য পাওয়া না গেলেও ভূ-তাত্বিকদের ধারনা প্রায় হাজার বছর আগে হিন্দু ধর্মাবলম্বী সন্যাসী মাধবেশ্বর এখানে আস্থানা করেন। পাহাড়বেষ্টিত নির্জন স্থানে সন্যাসী ধ্যানে মগ্ন থাকতেন। মাধবেশ্বরের আস্থানা ঘেষে বয়েছে ঝর্ণাধারা। পাথারিয়া পাহাড়েরর প্রায় ২৫০ ফুট উচু থেকে কল কল শব্দে ঝর্ণাধারা প্রবাহিত হচ্ছে। সন্যাসী তার প্রয়োজনীয় কাজ সম্পন্ন করতেন ঝর্ণার শীতল জল দিয়ে। সেই থেকে প্রাকৃতিক জলধারাটির নাম মাধবকুণ্ড হিসেবে পরিচিতি লাভ করে। জলপ্রপাতের অবিরাম স্রোতধারা প্রবাহিত হওয়ায় পাহাড়ের শরীর পুরোটাই যেন কঠিন পাথরে পরিনত হয়েছে। জলরাশি নির্গত কুণ্ডের ডানদিকে রয়েছে বিশাল গুহা। আদিম যুগের মানুষ গুহায় বসবাস করলেও আধুনিক যুগের মানুষ গুহার সাথে তেমন পরিচিত নয়। তবে মাধবকুণ্ডে এলে গুহার ভেতর প্রবেশ করে নতুন আমেজ পাওয়া যায়। পাহাড়ের গভীরে তৈরি গুহাকে আধুনিক কারুকচিত পাথরের একচালা মনে হয়ে থাকে। গুহাটির সৃষ্টি প্রাকৃতিক ভাবে হয়েছে বলে অনেকে ধারণা করলেও মুলত এটি ছিল সন্যাসী মাধবেশ্বরের ধ্যান মগ্নের গোপন আস্তানা। এটি কিভাবে, করা তৈরি করেছিল তার সঠিক তথ্য আজও রহস্যাবৃত।[রহিম শুভ্র]


অবস্থান ও যাতায়াত

সিলেট, মৌলভীবাজার বা শ্রীমঙ্গল থেকে রিজার্ভ গাড়িতে যেতে পারেন মাধবকুন্ড। ট্রেনে যেতে চাইলে নামতে হবে কুলাউরা স্টেশনে, সেখান থেকে সিএনজি নিয়ে নিতে পারেন।


Total Site Views: 642021 | Online: 32